মুখের বাড়তি মেদ উধাও হবে সাধারণ পাঁচ অভ্যাসেই!

দে’হের বাড়তি মেদ আপনার সৌন্দর্যে বা’ধা সৃষ্টি করে। তবে শ’রীরের স’ঙ্গে স’ঙ্গে যদি মুখের মেদও বাড়তে থাকে তবে তা দে’খতে খুবই বাজে লাগে। ফোলা গাল, থুতনির নিচের চর্বি মুখের সৌন্দর্য খুব সহজেই ন’ষ্ট করে। যা মাঝে মাঝে আপনাকে সবার সামনে খুব বিব্রতকর পরিস্থিতে ফে’লে দেয়।

তবে কিছু অভ্যাস রপ্ত ক’রতে পারলে এই বির’ক্তিকর চর্বি কমান সম্ভব। স্বা’স্থ্য-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্র’কাশিত প্র’তিবেদন অবলম্বনে মুখ ও থুতনির নিচে জমে থাকা বাড়তি চর্বি কমানোর উপায় স’ম্পর্কে জা’নানো হলো-

খাদ্য তালিকা থেকে প’রিশোধ িত কার্বোহাইড্রেট বাদ দিন। প’রিশোধ িত কার্বোহাইড্রেট অল্প আঁশ সমৃদ্ধ। সাদা রুটি, সাদা ভাত, ময়দা, চিনি, সোডা ও মিষ্টিতে থাকা এই ধ’রনের কার্বোহাইড্রেইট দে’হে বাড়তি মেদ যোগ করে। তাই প্রক্রিয়াজাত কার্বোহাইড্রেইটের বদলে শস্য-জাতীয় খাবার খাওয়া ভালো।

কম লবণ গ্রহণ করুন। অর্থাৎ সোডিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খাওয়ার কারণে দে’হে ফোলাভাব ও ফুলে ওঠার স’মস্যা দেখা দেয়। প্রক্রিয়াজাত খাবার লবণ সমৃদ্ধ। যা দে’হে বাড়তি পানি ধ’রে রাখে, ফোলাভাব আনে। ফলে মুখের চর্বি বৃ’দ্ধি পায়।

নিয়মিত মুখের ব্যায়াম করুন। মুখের চর্বি কমানোর জন্য নানান ব্যায়াম রয়েছে। এসব ব্যায়াম মুখের পেশি সুগঠিত করে ও আ’কার সুন্দর রাখে। প্রতিদিন ১০ সেকেন্ড জিহ্বার ব্যায়াম করুন। এতে গাল ও গলার পেশিতে টান প’ড়ে ও বাড়তি মেদ ঝরে যায়।

প্রতিদিন কমপক্ষে ২০ থেকে ৪০ মিনিট কার্ডিও ব্যায়াম করুন। যেমন: দৌড়ানো, হাঁটা ও দড়ি লাফানো। এতে শ’রীরের বাড়তি মেদ কমবে ও অতিরি’ক্ত ফোলাভাব দূ’র হবে।

অতিরি’ক্ত অ্যাকোহল গ্রহণ ফোলাভাব ও মুখে চর্বির সৃষ্টি করে। তাই অ্যালকোহল বাদ দিন, অসম্ভব মনে হলে দিনে এক গ্লাসের বেশি গ্রহণ না করাই শ্রেয়।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*